শ্বাসরোধে মৃত্যু হয় কলেজশিক্ষিকা খায়রুনের: চিকিৎসক

নাটোরে কলেজছাত্রকে বিয়ে করে আলোচনায় আসা সেই শিক্ষিকা খায়রুন নাহারের লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। প্রাথমিকভাবে শ্বাসরোধ হওয়ার কারণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা। এর আগে বিয়ের আট মাসের মাথায় আজ রোববার (১৪ আগস্ট) সকাল ৭টার দিকে শহরের বলারিপাড়া এলাকার একটি ভাড়া বাসা থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে মরদেহের ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক (আরএম্ও) সামিউল ইসলাম শান্ত জানান, মরদেহের শরীরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। শ্বাসরোধ হওয়ার কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। তারপরও ভিসেরা রিপোর্ট আসলে আরও বিস্তারিত জানা যাবে। তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে ময়নাতদন্ত করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এর আগে আজ রোববার (১৪ আগস্ট) সকালে পুলিশ তার স্বামী মামুনকে আটকের সময় উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে মামুন জানান, খায়রুন নাহারের বাবা-মাসহ আত্মীয়-স্বজনরা যোগাযোগ রাখতেন না। খায়রুন নাহারের কলেজের কোনো সহকর্মী তার সঙ্গে ভালোভাবে কথা বলতেন না। মানসিকভাবে চাপে ছিলেন খায়রুন। নিহত খায়রুন নাহারের চাচাত ভাই সাবির উদ্দিন বলেন, অসম বয়সের ছাত্রকে বিয়ে করায় খায়রুন নাহারের কলেজের সহকর্মীরা তার সঙ্গে তেমন কথা বলতেন না। বাবা-মাসহ আত্মীয়-স্বজনরা যোগাযোগ রাখতেন না। বিয়ের বিষয়টি গণমাধ্যমে আসার পর ফেসবুকে ব্যাপক সমালোচনা হওয়ায় খায়রুন নাহার মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন।

তবে এ বিষয়ে কথা বলার জন্য মামুনের কোনো স্বজনকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। তার বাবা মোহাম্মদ আলীর মোবাইল ফোন বন্ধ। তার চাচা আহম্মদ আলী মেম্বারকে মোবাইল ফোনে পাওয়া যায়নি। ঘটনার পর নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা, পিবিআই পুলিশ সুপার শরিফ উদ্দিন ও সহকারী পুলিশ সুপার মহসিনসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় পিবিআই পুলিশ সুপার শরিফ উদ্দিন বলেন, সব আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট ও তদন্ত অগ্রসর হলে মৃত্যুর বিষয়ে পরিষ্কার করে বলা যাবে।

নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা বলেন, বিষয়টি আত্মহত্যার মতোই মনে হচ্ছে। সিলিং ফ্যানে ওড়না দিয়ে ঝুলন্ত অবস্থা থেকে যেভাবে ওড়না আগুন দিয়ে পুড়িয়ে খায়রুন নাহারকে তার স্বামী নামিয়েছেন এটা বিশ্বাসযোগ্য। কাপড় এবং ফ্যানের কিছু অংশ পোড়া অবস্থায় দেখা গেছে। তারপরও মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত স্বামী মামুন বাইরে থাকাসহ সবগুলো পয়েন্ট মাথায় রেখে পুলিশ তদন্ত কাজ শুরু করেছে। মামুনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে এবং পুলিশের প্রাথমিক তদন্ত শেষ হলে এ বিষয়ে বিস্তারিত বলা যাবে।

উল্লেখ্য, গুরুদাসপুর উপজেলার খুবজীপুর এম হক ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক মোছা. খাইরুন নাহার। প্রথমে বিয়ে হয়েছিল রাজশাহীর বাঘায়। সেখানে তার এক সন্তানও রয়েছে। তবে পারিবারিক কলহে সে সংসার বেশি দিন টিকেনি। তারপর কেটে যায় অনেক দিন। এরই মাঝে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পরিচয় হয় ২২ বছরের যুবক মামুনের সঙ্গে। মামুনের বাড়ি একই উপজেলার ধারাবারিষা ইউনিয়নের পাটপাড়া গ্রামে। তিনি নাটোর এন এস সরকারি কলেজের ডিগ্রি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে ২০২১ সালের ২৪ জুন তাদের প্রথম পরিচয়। তারপর গড়ে ওঠে প্রেমের সম্পর্ক। তারপর ২০২১ সালের ১২ ডিসেম্বরে বিবাহ বন্ধনে আবন্ধ হন। সপ্তাহ খানেক আগে তাদের বিয়ের বিষয়টি ছড়িয়ে পড়ে।

শিক্ষিকার মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় প্রতিবেশি ও এলাকাবাসী ‘নিশ্চুপ’: নাটোরে কলেজ শিক্ষিকা নাজনীন নাহারের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় চলছে তোলপাড়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল সদস্য, গণমাধ্যমকর্মী ও বহিরাত বিপুল সংখ্যক মানুষের ভীড় শহরের বলারিপাড়ায় তাদের ভাড়া বাড়ির সামনে। ভীড় করছেন প্রতিবেশি ও এলাকাবাসীরা। তবে তাদের কেউ গণমাধ্যমের সামনে কোন কথা বলছেন না।

রোববার (১৪ আগস্ট) সকাল পেরিয়ে দুপুর হলেও তাদের বাড়ির সামনে ভীড় কমেনি৷ উৎসুক জনতার ভীড় সামাল দিতে মোতায়েন রয়েছে পুলিশ। জানা গেছে, যে বাড়িতে ওই দম্পতি বসবাস করেন সেই বাড়ির মালিক তানভীর আহমেদ। বাড়িতে ওই দম্পতিসহ আরো সাত ভাড়াটিয়া বসবাস করেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন একজন বিচারক, আইনজীবী, দুইজন ব্যাংকার, একটি বেসরকারি কোম্পানীর জেলা ব্যবস্থাপক ও দুইজন শিক্ষক। ঘটনার পর ওই বাড়ির ভাড়াটিয়াদের কারোই বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তারা গণমাধ্যমের ক্যামেরার সামনে বা পেছনে কোনো কথাই বলতে চাননি।

এছাড়া, তাদের প্রতিবেশিরা এ ঘটনায় উৎসুক দৃষ্টিতে পর্যবেক্ষণ রাখলেও তারাও কোনো কথা বলেননি। শুকুর আলী নামের এক চা দোকানী ওই বাড়ির অদুরে চা বিক্রি করেন। ঘটনা কিছু জানেন কিনা জানতে চাইলে তিনি কোন কথা বলতে চাননি। আসমা খাতুন নামে এক প্রতিবেশির নিকট ঘটনা জানতে চাইলে তিনিও কিছু জানেন না বলে সরে যান বাড়ির সামনে থেকে।

এর আগে বিয়ের আট মাসের মাথায় রোববার সকাল ৭টার দিকে শহরের বলারিপাড়া এলাকার একটি ভাড়া বাসা থেকে শিক্ষিকা খায়রুন নাহারের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নাটোর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাসিম আহমেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। এ ঘটনায় স্বামী মামুনকে আটক করেছে পুলিশ।

ভবনের বাসিন্দা ও এলাকাবাসী জানায়, রোববার ভোরে স্বামী মামুন ভবনের অন্য বাসিন্দাদের জানায় তার স্ত্রী খায়রুন নাহার শেষ রাতে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করেছে। লোকজন তার বাসায় গিয়ে খায়রুন নাহারের মরদেহ মেঝেতে শোয়া অবস্থায় দেখতে পেয়ে সন্দেহ হয়। তারা মামুনকে বাসার মধ্যে আটকে রেখে পুলিশে খবর দেয়।

About admin

আমার পোস্ট নিয়ে কোন প্রকার প্রশ্ন বা মতামত থাকলে কমেন্ট করে জানাতে পারেন অথরা মেইল করতে পারেন admin@sottotv.com এই ঠিকানায়।