জুমার প্রথম ও দ্বিতীয় খুতবা বাংলা উচ্চারণ

সম্মানিত খতিব সাহেব! আজকের এই পোস্ট থেকে আপনি জুমার খুতবা সম্পর্কে জানতে পারবেন। আজকের পোস্ট থেকে আমরা জুমার প্রথম খুতবা জানবো, জুমার খুতবা আরবী, জুমার নামাজের খুতবা আরবি, জুমার নামাজের খুতবা বাংলা উচ্চারণ।

আজকের খুতবার বিষয়ঃ নামাজের গুরুত্ব ও ফজিলত। দুটি খুতবা—

  • ১। নামাজের গুরুত্ব ও ফজিলত।
  • ২।কুরআন সুন্নাহের গুরুত্ব ও ফজিলত।

খুতবা ০১ خطبة الجمعة اليوم

বিষয়: নামাজের গুরুত্ব ও ফজিলত (أهمية الصلاة وفضلها)

إن الحمد لله نحمده ونستعينه ونستغفره ونعوذ بالله من شرور أنفسنا ومن سيئات أعمالنا من يهده الله فلا مضل له ومن يضلل فلا هادي له

وأشهد أن لا إلـه إلا الله وحده لا شريك له وأن محمدا عبده ورسوله، صلى الله عليه وعلى آله وأصحابه وسلم

يا أيها الذين آمنوا اتقوا الله حق تقاته ولا تموتن إلا وأنتم مسلمون

يا أيهـا الناس اتقوا ربكم الذي خلقكم من نفس واحدة وخلق منها زوجها وبث منهما رجالا كثيرا ونساء واتقوا الله الـذي تساءلون به والأرحام إن الله كان عليكم رقيبا

يا أيهـا الذين آمنوا اتقوا الله وقولوا قولا سديدا يصلح لكـم أعمالكم ويغفر لكم ذنوبكم ومن يطع الله ورسوله فقـد فاز فوزا عظيما

أما بعد فيا أيها المسلمون ، قال الله تعالى : حـافظوا على الصلوات والصلاة الوسطى وقوموا لله قانتين. فإن خفتم فرجالا أو ركبانا فإذا أمنتم فاذكروا الله كما علمكم ما لم تكونوا تعلمون

وقال رسول الله صلى الله عليه وسلم : مـن تـرك الصلاة فقد كفر

وقال رسول الله صلى الله عليه وسلم : مـن سـمع النداء فلم يجب فلا صلاة له إلا من عذر

بارك الله لنا ولكم في القرآن العظيم . ونفعني وإياكم بما فيه من الآيات والذكر الحكيم

أقـول قـولي هـذا وأستغفر الله لي ولكم ولسائر المسلمين من كل ذنـب فاستغفروه وتوبوا إليه ، إنه هو التواب الرحيم

জুমার প্রথম খুতবার বাংলা উচ্চারণ: ইন্নাল হামদা লিল্লাহি নাহমাদুহু ওয়ানাস্তায়িনুহু ওয়নাসাতাগফিরুহ, ওয়া নাঊযুবিল্লাহি মিন শুরুরি আনফুসিনা ওয়ামিন সায়্যিআতি আ’মালিনা, মাই ইয়াহদিহিল্লাহু ফালা মুদ্বিল্লালাহ, ওয়া মাই ইউদ্বলিল ফালা হাদিয়া লাহ।

ওয়া আশহাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা শারিকালাহ, ওয়া আন্না মুহাম্মাদান আবদুহু ওয়া রাসূলুহ, সাল্লাল্লাহু আলাইহি অয়ালা আলিহি ওয়া আসহিবিহি ওয়াসাল্লাম।

ইয়া আইয়্যুহাল্লাযিনা আমানুত তাকুল্লাহা হাক্কা তুকাতিহি ওয়ালা তামুতুন্না ইল্লা ওয়া আনতুম মুসলিমুন।

ইয়া আইয়্যুহান্নাসুত তাকু রাব্বাকুমুল লাযি খালাকাকুম মিন নাফসিও ওয়াহিদাতিও ওয়া খালাকা মিনহা যাওজাহা ওয়া বাসসা মিনহা রিজালান কাসিরাও ওয়া নিসা, ওয়াত তাকুল্লাহাল্লাযি তাসা আলুনা বিহি ওয়াল আরহাম, ইন্নাল্লাহা কানা আলাইকুম রাকিবা।

ইয়া আইয়্যুহাল্লাযিনা আমানুত তাকুল্লাহা ওয়া কূলূ কাওলান সাদিদা। ইউসলিহ লাকুম আমালাকুম ওয়াগ ফির লাকুম যুনুবাকুম, ওয়ামাই ইউতিয়িল্লাহা ওয়া রাসূলাহু ফাকাদ ফাযা ফাওযা আযিমা।

ভিডিওতে আরও দেখুন খুতবা নম্বর ০১

আম্মা বাদ, ফায়া আইয়্যুহাল মুসাল্লুনাল কিরাম, কালাল্লাহু তায়ালা, হাফিযু আলাস সালাওয়াতি ওয়াস সালাতিল উসতা, ওয়া কূমু লিল্লাহি কানিতিন। ফা ইন খিফতুম ফারিজালান আও রুকবানা, ফা ইযা আমিনতুম, ফাযকুরুল্লাহা কামা আল্লামাকুম মালাম তাকুনু তালামুন।

ওয়াকালা রাসূলুল্লাহি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মিন তারকিস সালাতি ফাকাদ কাফার।

ওয়াকালা রাসূলুল্লাহি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মিন সাময়িন নিদায়ি ফালাম ইয়াজিব ফালা সালাতা লাহু ইল্লা মিন উযরিন।

বারাকাল্লাহু লানা ওয়া লাকুম ফিল কুরআনিল আযীম, ওয়া নাফানি ওয়া ইয়্যাকুম বিমা ফিহি মিনাল আয়াতি ওয়ায যিকরিল হাকীম,

আকুলু কাওলি হাযা ওয়া আস্তাগফিরুল্লাহা লি ওয়ালাকুম ওয়ালি সায়িরিল মুসলিমিনা মিন কুল্লি যানবিন। ফাস্তাগফিরুহু ওয়া তো- বো ইলাইহ, ইন্নাহু হুয়াত তাওয়াবুর রাহীম।

ধন্যবাদ পাঠক, আশা করি আরবি জুমার খুতবা ও জুমার প্রথম খুতবা সম্পর্কে ধারণা পেয়েছেন। এটি একটি সংক্ষিপ্ত খুতবা। আপনি চাইলে উক্ত খুতবাটিতে ▶️ নামাজের গুরুত্ব ও ফজিলত সম্পর্কে আরো কিছু আয়াত ও হাদিস যোগ করতে পারেন। আর নামাজের গুরুত্ব ও ফজিলত সম্পর্কে আরবি খুতবা তৈরী করতে চাইলে এখানে প্রবেশ করুন ▶️ أهمية الصلاة وفضلها في ضوء القرآن والسنة

আরও পড়ুন: বিবাহের খুতবা আরবী ও বাংলা উচ্চারণ সহ এবং বিয়ে পড়ানোর সঠিক নিয়ম

কুরআন সুন্নাহ’র গুরুত্ব ও ফজিলত খুতবা নম্বর ০২ ▶️ في مسجدنا خطبة الجمعة اليوم مكتوبة قصيرة

পরম দাতা-দয়ালু আল্লাহর নামে

বিধানানুযায়ী আল্লাহর অসংখ্য প্রশংসা করিতেছি ।

সাক্ষ্য দিতেছি , খোদাদ্রোহী কাফেরের বিরূদ্ধে আর তা হইল — আল্লাহ ছাড়া মাবুদ নাই , তিনি একক — লা -শরীক । আরো সাক্ষ্য দিতেছি আমাদের নেতা , নবী ও মাওলা মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম আল্লাহর বান্দা ও রাসুল , যিনি সৃষ্টিকুলের সেরা সম্মানিত মানুষ ।

আয় আল্লাহ ! আমাদের নেতা ও মাওলা মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম ও তাঁর প্রানপ্রিয় বংশধর এবং দীপ্ত-ললাট সাহাবিদের উপর অনুগ্রহ , শান্তি ও করুনা বর্ষণ কর ।

হে আল্লাহর বন্দারা ! মিথ্যা শ্রবণ ও কথন থেকে দুরে থাক । আর তোমাদিগকে নিষেধ ও সাবধান কৃত বিষয়ে থেকে বিরত থাক ।

মনে রাখ ! আল্লাহ এমনি কাজের আদেশ দেন , যা তিনি নিজে শুরু করিয়া ফেরেশতাগনে তাঁর পবিত্রতা বর্ণনার নির্দেশ দেন । পরে মানব ও দানবের মু’মেনদিগকে নির্দেশ দেন ।

অনন্ত আদেশ ও সংবাদের ভংগিতে আল্লাহ বলেন :

আল্লাহ ও তাঁর ফেরেশতাকুল নবীর পরে দরূদ প্রেরণ করেন ! হে মু’মেনরা , তোমরাও তাঁর পরে দরূদ -সালাম পেশ কর ।

আয় আল্লাহ ! আমাদের নেতা । নবী ও মাওলা মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম যিনি মক্কা-মদিনার ঈমাম ও দু’বার হিজরতকারী আর তাঁর বংশধরদের পরে অনুগ্রহ , শান্তি ও বরকত দান কর ।

হে নবীর শাফাআত আকাংখী !

তাঁর পরে তোমরাও দরুদ-সালাম পাঠাও ।

খোদা ! হৃদয়-জ্বোতি ও চক্ষু-তৃপ্ত আমাদের নেতা , নবী ও মাওলা মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের আর তাঁর বংশধরদের পরে অনুগ্রহ, শান্তি ও বরকত প্রেরণ কর ।

তাই তাঁর নুর দর্শনাকাংখী হে মানব !

তোমরাও তাঁর পরে দরূদ-সালাম প্রেরণ কর ।

বিশেষতঃ

সাহাবীদের সেরাবংশোম্ভব কোহাফ তনয় আমিরুল মু’মিনীন সায়্যেদিনা আবু বরক ছিদ্দিক রাজি আল্লাহু তায়ালা আনহু ;

অতিশয় ধর্মভীরূ , ন্যায় ও স্পষ্টবদী খাত্তাব তনয় আমিরূল মু’মিনীন সাইয়্যেদিনা ওমর রাজি আল্লাহু তায়ালা আনহু ;

কোরআনে সংগ্রাহক , লজ্জাশীল ও দৃঢ় বিশ্বাসী আফফান তনয় আমীরুল মু’মিনীন সাইয়্যেদিনা হযরত ওছমান গনী রাজি আল্লাহু তায়ালা আনহু ;

আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের বিজয়ী ব্যাঘ্র রাসুল জামাতা আবু তালেন তনয় আমিরুল মু’মিনীন হযরত আলি রাজি আল্লাহু তায়ালা আনহু পরে দরুদ ও সালামের ধারা যেন বিরাজ থাকে ।

তা ছাড়া হযরত আলি (রাঃ) শান্তির প্রতিক পুত্রদ্বয় সাইয়্যেদেনা আবু মুহাম্মদ হাসান ও আবু আবদুল্লাহ হোসাঈন রাজি আল্লাহু তায়ালা আনহুমা এবং তাদের মাতা সাইয়্যেদেনা হযরত ফাতেমাতুজ্জোহরা রাজি আল্লাহু তায়ালা আনহা এর উপর ;

আর হযরতের মহান দই চাচা যাঁরা আল্লাহর ও মানুষের নিকট সম্মানিত , আবিলতা ও অপরিচ্ছন্নতা থেকে পবিত্র , সে আবু ওমারাতা হামজা এবং আবুল ফজল আব্বাস রাজি আল্লাহু তায়ালা আনহুমার উপর দরূদ – সালাম ।

বেহেশতের সুসংবাদ প্রদত্ত দশজন নিশিষ্ট সাহাবাবৃন্দের পরে কেয়ামত পর্যন্ত যেন দরূদ-সালামের ধারা অব্যহত থাকে ।

আল্লাহ ! ইসলাম ও মুসলমানদের বিজয়ী কর আর লজ্জিত -পরাস্ত কর কাফের, ফাসেক , সব শ্রেনীর বিরুদ্ধেবাদীদের ।

খোদা ! আমাদের দেশ ও সকল ইসলামী দেশ কে স্থায়ী কর এবং তাঁর রাষ্ট প্রধান , মন্ত্রী-মন্ডলীকে তোমার সরল পথে চালাও , আর বিশ্ব-জাহানে, মানব সমাজে শান্তি ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করার তওফিক তাদের দান কর ।

আল্লাহ ! তাদের ও তাদের সেনাদিগে বিজয়ী কর ; বিশেষতঃ তাদের বিজয় ও নিরাপদ রাখ ,আর তাদের চেষ্টায় বিদ্রোহীদের পরাভুত কর । ইহ-পরকালের চাবীকাঠি তোমার ই হাতে ।

আয় আল্লাহ ! আমাদের আলেমদিগকে সম্মান দাও , ধর্ম-সেবায় তাদের নিয়োজিত রাখা ছাড়াও তোমার জন্য রাখ নিবেদিত । আর তাদের ভ্রান্ত উদ্দেশ্য এবং আভন্তরীন রোগের ময়লা দুর কর ।

আল্লাহ ! আমাদের সাধারন মানুষকে তোমার ও তোমার রাসুল এবং নেতাদের অনুসারী হওয়ার তওফিক দাও । আর তারা যেন ভ্রান্ত নৈতিকদের অনুসারী না হয় , সে জন্য তাদের প্রকৃত গেয়ান দাও ।

আল্লাহ ! আমাদের নেতা মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের ধর্মের সাহায্যকারীদের বিজয়ী কর , আমাদের কে তাদের অনতর্ভুক্ত কর ।

কিন্তূ আমাদের নেতার ধর্ম যারা হীন করতে চাহে , তাদের দলভুক্ত আমাদের করিও না ।

আল্লাহ ! সকল মুসলমানদের ঘরে ঘরে শন্তি ও মার্জনা লিখিয়ে দাও আর লিখ আমাদের ক্ষমা-শান্ত-নিরাপত্তা আর মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের উম্মতের তোমার সকল বান্দার উদ্দেশ্যে ।

খোদা ! ইহলোক ও পরলোকে আমাদের সর্বাঙ্গীন মঙ্গল দান কর এবং মু’মেন নর নারীর জীবিতদের ও যারা মারা গিয়াছে তাদের গুনাহ মার্জনা করিয়া দাও ।

হে প্রধানতম অনুগ্রহকারী ! বিশ্ব-প্রভুর যাবতীয় প্রশংসা ।

বিতাড়িত শয়তান হইতে আল্লাহ পানাহ চাই ।

ইনছাফ, সদাচার ও ঘনিষ্ঠদের দানের জন্য আল্লাহ তোমাদিগকে আদেশ এবং নিষেধ করেন অশ্লিল, অন্যায় ও অবাধ্যতা হইতে , যেন তোমরাও উপদেশ প্রপ্ত হও ।

আল্লাহকে স্মরণ কর , আল্লাহ তার প্রতিফল দিবেন । তাঁকে ডাক , তিনি তার প্রতিদান দিবেন ।

সত্য আল্লাহর জিকির উচ্চ , উত্তম,সম্মানিত, সর্ববৃহৎ, প্রয়োজনীয় এবং পুর্ণতম শ্রেষ্ট ।

খোতবায়ে-ইবনে নোবাতার বঙ্গানুবাদ

ভিডিওতে আরও দেখুন খুতবা নম্বর ০২

জুমার সানি খুতবার আরবি পাঠ বাংলা উচ্চারণসহ

খুতবা সানি বা দ্বিতীয় খুতবার বাংলা উচ্চারণ: আলহামদুলিল্লাহি আস্তা’ইনুহু ওয়া আস্তাগফিরুহু ওয়া নাউ’যুবিল্লাহি মিন শুরুরি আনফুসিনা মাইয়্যাহদিল্লাহু ফালা মুদিল্লালাহ। ওয়া মা-ইয়্যুদলিল ফালা হাদিয়া লাহু ওয়া আশ-হাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা শারিকা লাহু ওয়া আশহাদু আন্না মুহাম্মাদান ‘আবদুহু ওয়া রাসুলুহু। আরসালাহু বিল হাক্কি বাসিরও ওয়া নাযিরান বাইনা ইয়াদাইয়্যিস্ সা’আতি মাইয়্যুতি ‘ইল্লাহা ওয়া রসুলাহু ফাক্বদরসাদা ওয়া মাইয়্যা’তিহিমা ফা ইন্নাহু লা ইয়া দুর্রু ইল্লা নাফসাহ।

ওয়ালা ইয়া দুর্রুল্লাহা সাইয়্যান আউজুবিল্লাহি মিনাশ শাইতনির রজীম।ইন্নাল্লাহা ওয়া মালা-ইকাতাহু ইউসল্লুনা আলান্নাবিয়্যি ইয়া আইয়্যুহাল্লাযিনা আমানু সল্লু ‘আলাইহি ওয়া সল্লিমু তাসলিমা। আল্লাহুম্মা সল্লি ‘আলা মুহাম্মাদিন ‘আবদিকা ওয়া রসুলিকা ওয়া সল্লি ‘আলাল মু-মিনি-না ওয়াল মু-মিনাতি ওয়াল মুসলিমিনা ওয়াল মুসলিমাতি ওয়া বারিক ‘আলা মুহাম্মাদিও ওয়া আযওয়াজিহী। ক্ব-লান্নাবিয়্যু সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম: আরহামু উম্মাতি বি উম্মাতি আবু-বকর। ওয়া আশাদ্দুহুম ফি আমরিল্লাহি ‘উমরু ওয়া আসদাক্বহুম হাইয়ান উছমানু ওয়া আক্বদহুম ‘আলি।

ওয়া ফাতিমাতু সায়্যিদাতু নিসা-ই আহলিল জান্নাতি ওয়াল হাসানু ওয়াল হুসাইনু সায়্যিদা শাবাবি আহলিল জান্নাহ। ওয়া হামযাতু আসাদুল্লাহি ওয়া আসাদু রসু-লিহি।আল্লাহুম্মাগফিরলিল ‘আব্বাসি ওয়া ওয়ালিদিহী মাগফিরাতিন যহিরাতাও ওয়া বাত্বিনাতাল্ লা তুগাদিরু যানবান আল্লাহা আল্লাহা ফি আসহাবি লা তাত্তাখিযুহুম গারদাম্ মিন বাগদি ফামান আহাব্বাহুম ফাবিহুব্বি আহাব্বাহুম ওয়া মিন আবগদাহুম ফাবিবুগদি আবগদাহুম ওয়াখইরু উম্মাতি ক্বারনি ছুম্মাল্লাযিনা ইয়ালুনাহুম ছুম্মাল্লাযিনা ইয়ালুনাহুম ওয়াস্ সুলত্বনু যিল্লিল্লাহি ফিল আরদি মান আহানা সুলত্বনাল্লাহি ফি-ল আরদি আহানাহুল্লাহু ইন্নাল্লাহা ইয়ামুরু বিল ‘আদলি ওয়াল ইহসানি ওয়ায়্যিতা-ই যিল ক্বুরবা-ওয়ানহা ‘আনিলফাহসা-ই ওয়াল মুনকার ওয়াল-বাগয়্যি, ইয়া‘ইজুকুম লা’আল্লাকুম তাযাক্কারুন। ফাযকুরুনি আযকুরুকুম ওয়াশ কুরুলি ওয়ালা তাকফুরুন।

★★আরবির বাংলা উচ্চারন পড়া ঠিক নয়। কেননা, বাংলা উচ্চারনে গুন্নাহ, কিছু হরফ (যেমন: ওয়াও যের এর উচ্চারণ ইত্যাদি) ঠিকভাবে লিখা যায় না। তাই, আরবিতে পড়ুন। আরবিতে উচ্চারণ বা মাখরাজের তারতম্যের কারনে অর্থ বিকৃত হয়। এজন্য, আরবিসহ সানি বা দ্বিতীয় খুতবা নিচে দেয়া হলো।

ভিডিওতে আরও দেখুন: জুমার সানি খুতবা

জুমার খুতবা বাংলা ভাষায় দেওয়া কি জায়েয? ‘মাতৃভাষায় জুমার খুতবা’।

প্রসঙ্গঃ জুমার খুতবা

প্রশ্নঃ জুমার খুতবা আরবী ভাষায় না দিয়ে বাংলা বা অনারবী ভাষায় দিলে খুতবা সহীহ হবে কি?

মাতৃভাষায় জুমার খুতবা দেয়ার বিধানঃ-

জবাব: জুমার খুতবা আরবি ভাষায় প্রদান করা সুন্নাতে মুয়াক্কাদা। রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজে আরবি ভাষায় খুতবা দিয়েছেন। সাহাবায়ে কেরাম রাদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম, তাবেয়ীন ও ত্ববে তাবিয়ীন রহিমাহুমুল্লাহ সকলেই সকল যুগে আরবী ভাষায় খুতবা দিয়েছেন। কেউই আরবী ভাষা ব্যতিত ভিন্ন ভাষায় খুতবা দেননি। এমনকি মুসলমানগণ কোনো অনারব এলাকা বিজয় লাভ করলেও সে এলাকায় জুমার খুতবা আরবীতে দিতেন।

আরবিতে খুতবা পড়ার পরিবর্তে শুধু বাংলা তরজমা করা বা অন্যভাষায় অনুবাদ করে শুনানো মাকরুহে তাহরীমী।

অনেকে খুৎবাহকে ওয়ায নসীহত মনে করেন তাই তারা মাতৃভাষায় খুতবা দেওয়ার দাবী করেন। কিন্তু পবিত্র কুরআনুল কারিমের সূরায়ে জুমআর নয় নং আয়াতে খুতবাহকে যিকির বলা হয়েছে যা একটি ইবাদাত। সুতরাং সালাতের ক্বিরাতের অর্থ মুসল্লীগণ না বঝুলেও যেমন বাংলায় বলা যায় না, তেমনিভাবে খুৎবা না বুঝলেও তা বাংলায় বলা যায় না। তবে যদি কথা প্রসঙ্গে কোন বিষয় এসে যায়, তবে তা মুসল্লীদের বোধগম্য ভাষায় বলতে পারে। যেমন খুৎবার সময় কেউ কথা বলছে, তাকে তখন মাতৃভাষায় নিষেধ করা।

অত্যন্ত দুঃখের সাথে বলতে হয় যে,মুসলমানগণ বহু ভাষা শিখে। কিন্তু আরবী ভাষার শিক্ষা বা তার অর্থ বুঝার প্রতি কোন গুরুত্ব দেয় না। উল্টা খুৎবা বাংলায় পড়ার জন্য আবদার করতে থাকে।

[প্রমাণঃ ফাতাওয়া মাহমুদীয়া ২ঃ২৯৫
ইমদাদুল ফাতাওয়া ১ঃ৬৪৭/৪৯
ফাতাওয়া শামী ১ঃ৪৮৪]

রেফারেন্স সোর্সঃ ফতোয়ায়ে রাহমানীয়া ১ম খন্ড।

রাসুল সা.এর যুগ থেকে এ পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে আরবি ভাষায় খুতবা প্রদানের নিয়ম চলে আসছে। উপরন্তু খুতবা শুধু নসিহত নয় বরং তা ইবাদতও বটে। তাই ইবাদত নবীজি (সা.) এবং সাহাবায়ে কেরামের অনুসরণে আদায় করা একান্ত অপরিহার্য হওয়ায় সমস্ত ফিকাহবিদ আরবি ভাষায় খুতবা প্রদানের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন এবং অন্য যেকোনো ভাষায় খুতবা প্ৰদান থেকে নিষেধ করেছেন। (উমদাতুর রিআয়াহ : ১/২০০)।

আমরা যদি ইতিহাসের দিকে লক্ষ্য করি তাহলে দেখতে পাবো যে, সাহাবায়ে কেরাম, তাবেঈন ও অন্যান্য ইসলামি সিপাহসালার ও শাসকগণ অনেক অনারব রাষ্ট্র জয় করেছিলেন, অনারব দেশসমূহে শ্রোতাদের প্রয়োজনে কোথাও অনারবি ভাষায় খুতবা প্রদান করেছেন বলে কোনো প্রমাণ নেই।

قال الله تعالى: يأيها الذين أمنوا إذا نودي لصلاة من يوم الجمعة فاسعوا إلي ذكر الله…
সূরা জুমআর নয় নম্বর আয়াতের মধ্যকার যিকরুল্লাহ দ্বারা প্রায় সকল মুফাসসীরদের মতে খুতবা উদ্দেশ্য। (তাফসিরে রাযি ১/৪৪৬, তাফসিরে রুহুল মাআনি ২৮/১০২, তাফসিরে ইবনে আব্বাস রাঃ)। হাদিসেও খুতবাকে যিকির হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। فإذا خرج الإمام حضرت الملائكة يستمعون الذكر
ইমাম যখন খুতবা দিতে বের হন তখন ফেরেশতাগণ এসে যিকির শুনেন অর্থাৎ খুতবা শুনেন। (বুখারী ১/৩০১, মুসলিম ৮০৫)

ইসলামি শরীয়তে শুধুমাত্র বক্তৃতার নাম খুতবা নয়। এটি নামাজের মতই গুরুত্বপূর্ণ ও দুই রাকাত নামাজের স্হলাভিসিক্ত। তাই নামাজে যেমন আরবী ছাড়া অন্য কোনো ভাষায় পড়া যায় না। তেমনি খুতবাও অন্য ভাষায় পড়া যাবে না।

আরবী ব্যাতিত অন্য কোনো ভাষায় খুতবা দেয়া শরীয়ত পরিপন্থী ও বিদাত বলে বিবেচিত হবে। (আহসানুল ফাতওয়া: ৪/১৫৪)।

মুফতি খাইরুল ইসলাম
হানাফি ফিকহ।

আশা করি জুমার খুতবা বাংলা ভাষায় বা মাতৃভাষায় জুমার খুতবা দেওয়ার বিধান সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা পেয়েছেন।

আরও পড়ুন: জুমার প্রথম ও দ্বিতীয় খুতবা আরবি, জুমার প্রথম ও দ্বিতীয় খুতবা pdf, জুমার নামাজের খুতবা বাংলা অনুবাদ, জুমার দ্বিতীয় খুতবা বাংলা উচ্চারণ, জুমার দ্বিতীয় খুতবা বাংলা অনুবাদ, জুমার প্রথম ও দ্বিতীয় খুতবা বাংলা অর্থ, জুমার নামাজের খুতবা বাংলা উচ্চারণ pdf, আতাউল্লাহ বুখারী খুতবা বাংলা উচ্চারণ, জুমার খুতবা

About admin

আমার পোস্ট নিয়ে কোন প্রকার প্রশ্ন বা মতামত থাকলে কমেন্ট করে জানাতে পারেন অথরা মেইল করতে পারেন admin@sottotv.com এই ঠিকানায়।