পেটব্যথা নিয়ে বাথরুমে গিয়ে সন্তান প্রসব করলেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী

রাতে বাইরে বের হওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন জেস ডেভিস নামে যুক্তরাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া এক শিক্ষার্থী। হঠাৎ তার পেটব্যথা শুরু হলে টয়লেটে যান তিনি। সেখানেই একটি সুস্থ সবল শিশুর জন্ম দেন। এই ঘটনা নিয়ে নিজেই হতবাক হয়ে যান তিনি। ২০ বছর বয়সী জেস জানতেনই না যে তিনি সন্তানসম্ভবা! তিনি ভেবেছিলেন মাসিকের কারণে পেটব্যথা হচ্ছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ইন্ডিপেনডেন্টের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জেস ডেভিস ব্রিস্টলের ইতিহাস ও রাজনীতির শিক্ষার্থী। তিনি বর্তমানে সাউদাম্পটন ইউনিভার্সিটিতে দ্বিতীয় বর্ষে পড়ছেন। তাঁর গর্ভধারণের কোনো সুস্পষ্ট লক্ষণ ছিল না। ছিল না বেবি বাম্পও। তিনি দাবি করেছেন, তাঁর ঋতুচক্র সব সময়ই অনিয়মিত ছিল। তাই লক্ষ্য করেননি যে জরায়ুতে একটি শিশু বড় হচ্ছে।

গত ১১ জুন একটি ছেলে সন্তানকে পৃথিবীতে স্বাগত জানান জেস ডেভিস। এখন অবশ্য মাতৃত্বে অভ্যস্ত হয়ে উঠছে। নবজাতকের ওজন প্রায় তিন কেজি। নতুন মা বলেছেন, যখন সে জন্মেছিল, সেই ঘটনা ছিল আমার জীবনের সবচেয়ে বড় একটা ধাক্কা। আমি প্রথমে ভেবেছিলাম আমি দুঃস্বপ্ন দেখছি।

ডেভিস বলেন, যতক্ষণ না আমি তার কান্না শুনি, ততক্ষণ আমি বুঝতে পারিনি কী ঘটেছে। প্রাথমিক ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে এবং তার সঙ্গে মানিয়ে নিতে, তার সঙ্গে মাতৃত্বের বন্ধন তৈরি করতে কিছুটা সময় লেগেছে। কিন্তু এখন আমি যেন চাঁদ হাতে পেয়েছি! সে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে ঠান্ডা শিশু। সে ওয়ার্ডের শান্ত শিশু হিসেবে পরিচিত, সে বলল।

ইন্ডিপেনডেন্টের তথ্য অনুসারে, চলতি বছরের জুনের এক রাতে তীব্র ব্যথায় ঘুম থেকে জেগে উঠেছিলেন ডেভিস। তখন ধরেই নিয়েছিলেন এটি তাঁর মাসিকের শুরু। তিনি কোনোরকম হাঁটতে পারছিলেন। ব্যথার কারণে বিছানায় শুতেও পারছিলেন না।

ডেভিস বলেন, সেই রাতে আমার জন্মদিনের পরের দিন একটি হাউস পার্টি করার কথা ছিল। তাই প্রাণপণে ভালো বোধ করার চেষ্টা করছিলাম। বারবার গোসল করেছিলাম। কিন্তু ব্যথা শুধু বাড়ছিলই।

ডেভিস আরও বলেন, একপর্যায়ে বাথরুমের চাপ পায়। টয়লেটে বসে জোরে কোঁৎ দিতে শুরু করেন। কখনো ভাবিনি আমি সন্তান জন্ম দিচ্ছি। কিন্তু একপর্যায়ে আমার তলপেট যেন ছিঁড়ে যাচ্ছিল। কিছু একটা পড়ে যায়। তখনো জানতাম না এটা কী! আমি শুধু জানতাম যে চাপমুক্ত হতে একটা কিছু বের করে দেওয়া দরকার। তার কান্নার শব্দ শুনে যেন আমি বাস্তবে ফিরে আসি। বুঝতে পারি আসলে কী ঘটল।

তখন কী করবেন বুঝে উঠতে পারছিলেন না ডেভিস। বাড়িতে একা ছিলেন। তখন সবচেয়ে কাছে বন্ধু লিভ কিংকে ফোন করেন। প্রথমে তাঁর সেই বন্ধু বিশ্বাসই করছিলেন না। ওতো রাতে তিনি বাইরে বের হতে চাচ্ছিলেন না। নানা অজুহাত দিতে থাকেন। ডেভিসকে অ্যাম্বুলেন্স কল করার পরামর্শ দেন। তখন বাধ্য হয়ে ডেভিস তাঁকে নবজাতক পুত্রের একটি ছবি পাঠান।

ইন্ডিপেনডেন্টের তথ্য অনুসারে, ডেভিসকে প্রিন্সেস অ্যান হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। সেখানে শিশুটিকে ইনকিউবেটরে রাখার জন্য দ্রুত নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসকদের ধারণা, শিশুটি ৩৫ সপ্তাহ গর্ভে ছিল। মা ও শিশু এখন ভালো আছেন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা

৮ম শ্রেণির ছাত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক, ৬ মাসের অন্তঃস্বত্ত্বা পাবনার চাটমোহরে বিয়ের প্রলোভনে শারীরিক সম্পর্ক করায় ৮ম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক স্কুল ছাত্রী ৬ মাসের অন্তঃস্বত্ত্বা হয়ে পড়েছে। সোমবার (২৭ জুন) সকালে মেয়েটির অস্বাভাবিক শারীরিক অবস্থা দেখে পরিবারের লোকজন ও প্রতিবেশীদের সন্দেহ হলে বিষয়টি জানাজানি হয়। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মূলগ্রাম ইউনিয়নের কুবিরদিয়ার পূর্বপাড়া গ্রামে এবং মেয়েটি স্থানীয় একটি মাদ্রাসায় ৮ম শ্রেণিতে পড়ে। অভিযুক্ত প্রেমিক একই ইউনিয়নের বালুদিয়ার গ্রামের ফারুক হোসেনের ছেলে জিলহাজ হোসেন (১৮)। সে একাদশ শ্রেণিতে পড়–য়া কলেজ ছাত্র। এ ঘটনায় মেয়েটি ছেলের পরিবারের কাছে স্ত্রীর মর্যাদা চাইলে ছেলের পরিবার তাল বাহানা শুরু করলে মেয়েটি চাটমোহর থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন।

ভূক্তভোগী স্কুল ছাত্রী জানান, প্রায় এক বছর পূর্বে আমাদের বাড়ির পাশে একটি বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠানে জিলহাজ এর সাথে পরিচয় হয়। প্রথমে সে আমাকে প্রেমের প্রস্তাব দিলে আমি রাজি হইনি। সে তখন আমাকে জানায় সে অনেক ভালবাসে এবং বিয়ে করবে। তখন আমি তার প্রস্তাবে রাজি হয়ে যাই এবং আমাদের প্রেমের সম্পর্ক হয়। মেয়েটি আরো জানায়, গত আটমাস আগে সে আমাকে পালিয়ে বিয়ে করবে বলে রাতে আমার বাড়িতে আসতো। বাড়িতে আমার বাবা মা না থাকায় সে আমাকে বাড়ির পাশে বাগানে নিয়ে গিয়ে অনেক দিন শারীরিক সম্পর্ক করেছে। পরে তাকে বিয়ের কথা বললে সেবলে এইতো সামনের কিছু দিন পরেই আমরা পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করবো। এখন সে আর আমাকে ধরা দিচ্ছে না। আমার ফোনও ব্লাকলিষ্টে রেখে দিয়েছে। আমি এখন ছয় মাসের অন্তঃস্বত্ত্বা। সে যদি আমাকে গ্রহন না করে তাহলে আমার আত্মহত্যা ছাড়া কোন উপায় নেই।

ঘটনার বিষয়ে চাটমোহর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন বলেন, মেয়েটির বাবা মা নেই। বৃদ্ধ দাদীর কাছেই সে থাকে। সোমবার বিকেলে থানায় এসে অভিযুক্ত ছেলের বিরুদ্ধে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছে। মেয়েটির ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে। আসামী গ্রেফতারে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

About admin

Check Also

সম্পর্কের পর বাতি জ্বালাতেই দেখেন অন্য কেউ!