রবিবার , জানুয়ারী 29 2023

শারীরিক অক্ষমতা: একে একে চলে গেল ৪ স্ত্রী, ক্ষোভে ৫ম স্ত্রীকে হত্যা পরে নিজের প্রাণ দিলেন স্বামী

মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ষোলটাকা ইউনিয়নের কুঞ্জুনগর গ্রামে সাবিনা খাতুন (৩২) নামের এক নব-বধূর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এদিকে তার স্বামী বিদ্যুত হোসেন পলাতক রয়েছে। নিহত সাবিনা কুঞ্জুনগর গ্রামের বিদ্যুত হোসেনের স্ত্রী ও একই উপজেলার কুমারীডাঙ্গা গ্রামের আব্দুস সাত্তারের মেয়ে। আজ বুধবার (২৬ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে গাংনী থানা পুলিশের একটিদল স্বামীর ঘর থেকে নব-বধূর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করে।

স্থানীয়রা জানান, বিদ্যুৎ ও সাবিনার গত ১ মাস আগে পারিবারিক সম্মতিতে বিয়ে হয়। বিদ্যুতের যৌন সক্ষমতা নেই। তাছাড়াও তার শারীরিক ভাবে দেখতে অনেক রোগাকান্ত। এনিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মানোমালিন্য চলছিল।

মঙ্গলবার সন্ধ্যারাতে সাবিনার বাবার পরিবারের লোকজন তাদের মনোমালিন্য বিষয়টি মিমাংসা করে চলে যায়। পরের দিন বুধবার সকালে প্রতিবেশীরা স্বামীর ঘরে সাবিনার রক্তাক্ত লাশ দেখতে পায়। ধারণা করা হচ্ছে, সাবিনার স্বামী বিদ্যুত হোসেন তাকে হত্যা করে পালিয়ে গেছেন।

সংবাদ পেয়ে গাংনী থানা পুলিশের একটিদল লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মেহেরপুর মর্গে নেয়। এদিকে গাংনী থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, বিদ্যুত গত ৪ বছরে ৫টি বিয়ে করেন। প্রথম মেহেরপুর সদর উপজেলার রাজনগর গ্রামের আখি খাতুনের সাথে বিয়ে হয় বিদ্যুত হােসেনের। দ্বিতীয় বিয়ে হয় গাংনী উপজেলার ধর্মচাকী গ্রামের ইসমত আরা খাতুনের সাথে। তৃতীয় বিয়ে হয় একই উপজেলার সহড়াবাড়িয়া গ্রামের কবিতা খাতুনের সাথে। এ ছাড়াও চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা এলাকার জান্নাতুলের সাথে চতুর্থ। এবং সর্বশেষ সাবিনার সাথে তার পঞ্চম বিয়ে। তবে তার যৌন অক্ষমতার কারণে এ পর্যন্ত ৪জন স্ত্রী নিজে তালাক নেন। সর্বশেষ গত ১ মাস পূর্বে সাবিনাকে বিয়ে করেন বিদ্যুত হােসেন। বিয়ের পর থেকে তাদের স্বামীর মধ্যে মনোমালিন্য লেগেই থাকতো।

শারীরিকভাবে অক্ষম: স্ত্রীকে হত্যার পরে নিজের প্রাণ দিলেন স্বামী

মেহেরপুরের গাংনীর হুদাপাড়া গ্রামের পৃথক স্থান থেকে স্বামী, স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার (২৬ অক্টোবর) সকালে নিজ ঘর থেকে সাবিনা খাতুন (৩০) নামের এক গৃহবধুর রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে দুপুর ১টার দিকে স্বামী বিদ্যুত হোসেনের ঝুলন্ত মরদেহ গ্রামের একটি বাঁশবাগান থেকে উদ্ধার করা হয়।

সাবিনা খাতুন কুমারীডাঙ্গা গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তারের মেয়ে। বিদ্যুত হোসেন হুদাপাড়া গ্রামের দিনমজুর ওলি আহম্মেদের ছেলে।

জানা যায়, ঘরের মেঝেতে ভারি পাথর ও বিছানায় রক্তের ছোপ ছোপ দাগ দেখে পুলিশের ধারণা সাবিনাকে পাথর দিয়ে মাথায় আঘাত করে হত্যা করার পর পরই স্বামী বিদ্যুত হোসেন গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মনিরুল ইসলাম জানান, মাস খানেক আগে গাংনীর কুমারীডাঙ্গা গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তারের মেয়ে সাবিনা খাতুনের সাথে হুদাপাড়া গ্রামের দিনমজুর বিদ্যুত হোসেনের বিয়ে হয়। এটি সাবিনার দ্বিতীয় আর বিদ্যুতের পঞ্চম বিয়ে। বিয়ের পর থেকে সাবিনা বিদ্যুতের মাঝে চলছিল দাম্পত্য কলহ। সপ্তাহ খানেক আগে বিদ্যুত তার স্ত্রী সাবিনাকে তার পিতার বাড়িতে রেখে আসে।

মঙ্গলবার বিকেলে সাবিনা ও তার ভাই স্বামির বাড়িতে চলে আসে। সন্ধ্যায় সাবিনা ও তার ভাইকে মারধর করে বিদ্যুত। রাতেই সাবিনার ভাই নিজ বাড়িতে চলে গেলেও সাবিনা থেকে যায় স্বামীর বাড়ি। ভোরে বিদ্যুত ও তার পরিবারের লোকজন বাড়ি থেকে সটকে পড়ায় প্রতিবেশিদের সন্দেহ হয়। পরে লোকজন ওই বাড়িতে গিয়ে সাবিনার লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দিলে মরদেহ উদ্ধার করে। পরে দুপুর ১টার দিকে হুদাপাড়া গ্রামের মাঠের একটি বাগানের আম গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় বিদ্যুতের মরদেহ দেখে পুলিশে খবর দেয়া হয়েছে।

স্থানীয় হেমায়েতপুর ক্যাম্প পুলিশের এসআই মাসুদ জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গেছে, সাবিনার নিথর দেহ খাটের উপর পড়ে আছে। রক্তাক্ত বিছানার পাশেই রয়েছে পাথরের একটি ভারী বস্তু। তাতেও রক্ত লেগে আছে। প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ঘুমন্ত অবস্থায় ওই পাথর দিয়ে সাবিনার মাথায় আঘাত করে হত্যা করা হয়েছে। পরে বিদ্যুতকে খুজে পাওয়া যাচ্ছিলনা। স্থানীয়রা দুপুরে বিদ্যুতের ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পেয়ে আমারদের জানালে মরদেহ উদ্ধার করেছি।

গাংনী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক বলেন, গৃহবধু সাবিনার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করার প্রক্রিয়া শেষ করতেই বিদ্যুতের মরদেহ দেখেছে বলে স্থানীয়রা আমাকে সংবাদ দিলে ঘটনা স্থলে গিয়ে বিদ্যুতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। দুজনের মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য মেহেরপুর মর্গে প্রেরণের প্রক্রিয়া চলছে।

Check Also

‘আব্বা আমিও মরলাম, তোমাগোও মাইরা গেলাম’

মাদারীপুরের সদর উপজেলার শিরখাড়া ইউনিয়নের শ্রীনদী গ্রামের চা বিক্রেতা হাবীব ব্যাপারীর একমাত্র ছেলে রফিকুল ব্যাপারী। …